র্সবশেষ শিরোনাম

বুধবার, ডিসেম্বর ১২, ২০১৮

বাংলা পত্রিকা

Main Menu

সপ্তাহের শুরুতে সম্পূর্ণ নতুন সংবাদ নিয়ে

পর্যটকমুখর ইনানী

সাগরকন্যা ইনানী সি-বিচ ভ্রমণপিপাসু পর্যটকের পদচারণায় মুখর হয়ে উঠেছে। ঈদের টানা দীর্ঘ ছুটি উপভোগ করতে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে অসংখ্য পর্যটক সমুদ্রকন্যা ইনানী বিচে ছুটে এসেছেন। দূরদূরান্ত থেকে অনেক চড়াই উৎরাই পেরিয়ে ইনানী বিচে ভ্রমণপিপাসুরা এলেও আনন্দের পাশাপাশি ভোগান্তির শিকারও হতে হচ্ছে বলে পর্যটকদের অভিযোগ। তাছাড়া বিচে যত্রতত্র বিচরণকারী বিচবাইকের উৎপাতসহ বখাটে শ্রেণির তৎপরতা থাকলেও চোখে পড়ার মতো কোনো নিরাপত্তা ব্যবস্থা না থাকায় হতাশা ব্যক্ত করেছেন পর্যটকরা। ইনানী বিচের প্রবেশপথে স্থানীয় কিছু যুবক দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা পর্যটকদের গাড়ি থেকে গাড়ি পিছু ১০০-২৫০ টাকা হারে চাঁদা হাতিয়ে নিচ্ছে। নিরাপত্তা দেয়ার কথা বলেও সুবিধাবাদী একশ্রেণির প্রভাবশালী লোক পর্যটকদের কাছ থেকে হাতিয়ে নিচ্ছে হাজার হাজার টাকা। এ নিয়ে পর্যটকদের সঙ্গে চাঁদাবাজদের তর্ক ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটতে দেখা গেছে। উক্ত বিচে টয়লেট, বাথরুম, চেঞ্জিং রুম, নিরাপত্তা ইত্যাদি সুযোগ সুবিধা না থাকায় পর্যটকদের বিশেষ করে নারী ও শিশুদের তড়িঘড়ি ইনানী বিচ দর্শন অপূর্ণ রেখেই বিচ ত্যাগ করে গন্তব্যস্থলে ফিরে যেতে দেখা গেছে। ইনানী বিচে কোনো স্বেচ্ছাসেবক বা টুরিস্ট পুলিশের অথবা অন্য কোনো ধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা না থাকায় পর্যটকদের জিনিসপত্র ও মালামাল চুরি হওয়ারও অভিযোগ রয়েছে। তবে ইনানী বিচের নিরাপত্তায় নিয়োজিত ৪ জন টুরিস্ট পুলিশ থাকলেও তারা যথাযথ দায়িত্ব পালন না করে স্থানীয় বাজারে লোকজনের সঙ্গে আড্ডা দিতে দেখা যায়। বগুড়া থেকে আসা জেলা কৃষি অফিসের কর্মকর্তা মির হোসেন চম্পল (৩৫) বলেন, পর্যটন স্পটে একটি সুশৃঙ্খল পরিবেশ থাকার কথা থাকলেও কিন্তু ইনানী বিচে কোনো ধরনের পরিবেশ নেই। অথচ ইনানী বিচ কক্সবাজার, সেন্টমার্টিন ও অন্যান্য দর্শনীয় স্থানের চেয়ে খুবই আকর্ষণীয়। গাজীপুর থেকে আসা পর্যটক দম্পতির মিসেস জেনী রহমান জানান, ইনানীতে সুযোগ সুবিধার অভাবে তারা কক্সবাজার শহরের আবাসিক হোটেলে উঠেছেন। সেখান থেকে ইনানী বিচ দেখার জন্য এলেও এখানে কোনো নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা না থাকায় তাদের কাপড়চোপড় ও অন্যান্য মূল্যবান মালামালের নিরাপত্তার অভাবে ইনানীর দর্শনীয় স্থানগুলো উপভোগ না করেই তড়িঘড়ি ফিরে যেতে হচ্ছে। সেখানে জরুরি ভিত্তিতে অতিরিক্ত টুরিস্ট পুলিশ বা স্থানীয়ভাবে প্রশাসনের উদ্যোগে নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানান তারা। ঢাকা থেকে আসা একটি মহিলা কলেজের কয়েকজন ছাত্রী জানালেন, চট্টগ্রামের পতেঙ্গা, কক্সবাজার বিচ ও অন্যান্য দর্শনীয় স্থানে কোনো চাঁদা দিতে না হলেও ইনানী বিচে তাদের মাথাপিছু ১০ টাকা হারে এবং তাদের বহন করা মাইক্রোবাস পার্কিংয়ের জন্য ১০০ টাকা, মিনিবাস ২০০ টাকা ও বড় বাসকে ৩০০ টাকা হারে চাঁদা দিতে হচ্ছে। ইনানী বিচের গাড়ি পার্কিং ইজারাদার নুরুল আমিন সিকদার বলেন, কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের বেঁধে দেয়া নীতিমালার বাইরে অতিরিক্ত কোনো টোল আদায় হচ্ছে না এবং যারা আদায় করছে তাদের এ ব্যাপারে সতর্ক করে দেয়া হয়েছে। তাছাড়া বিচবাইক থেকে চাঁদা আদায়ের কথাও তিনি অস্বীকার করেন।
এ ব্যাপারে উখিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মাঈন উদ্দিন বলেন, গাড়ি পার্কিংয়ের ক্ষেত্রে নীতিমালা অনুযায়ী টোল আদায় করা হচ্ছে কিনা খতিয়ে দেখা হবে। কেউ চাঁদা নিয়ে থাকলে তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ রকম আরো খবর

নেত্রী সীমা ইসলাম ঢাবি’র ইতিহাসে প্রথম নারী সহকারী প্রক্টর

ঢাকা ডেস্ক: বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক নেত্রী সীমা ইসলাম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়েরবিস্তারিত

টাঙ্গাইলে প্রশিক্ষণ বিমান বিধ্বস্ত, পাইলট নিহত

বাংলা পত্রিকা ডেস্ক: টাঙ্গাইলের মধুপুরে বিমান বাহিনীর একটি প্রশিক্ষণ বিমানবিস্তারিত

  • পরিবারের অভিযোগ : ডিবি তুলে নিয়ে গেছে সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী ড. মিলনকে
  • বুধবার পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী
  • নীলফামারীতে মওলানা ভাসানী স্মরণে মিছিল
  • মওলানা ভাসানীর ৪২তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত : ভাসানীর আদর্শে দেশে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনবো-সন্তোষে ড. কামাল
  • বাসস’র এমই শাহরিয়ার শহীদের ইন্তেকাল
  • শনিবার মওলানা ভাসানীর ৪২তম মৃত্যুবার্ষিকী
  • বিএনপির পাশে চীন, অভিযোগ হাসিনার দলের
  • বাংলাদেশে সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানে যুক্তরাষ্ট্র কংগ্রেসের হস্তক্ষেপ কামনা
  • এম এম শাহীনের বিকল্পধারায় যোগদান
  • কমিউনিটির পরিচিত মুখ জামান তপনের মাতৃবিয়োগ
  • ‘বাংলাদেশ উন্নয়ন মেলা’য় অগ্রগতির জয়গান
  • হাসিনার সঙ্গে টক্করে এ বার খালেদার পুত্রবধূ?
  • error: Content is protected !! Please don\'t try to copy.