র্সবশেষ শিরোনাম

শনিবার, ফেব্রুয়ারি ১৬, ২০১৯

বাংলা পত্রিকা

Main Menu

সপ্তাহের শুরুতে সম্পূর্ণ নতুন সংবাদ নিয়ে

আসুন সেলফ সেন্সরশিপ চর্চা করি

মতিউর রহমান চৌধুরী: লিখতে মন চায়। আবার চায় না। কেন চায় না, সংবাদমাধ্যমের পাঠককুলকে খোলাসা করে বলার প্রয়োজন নেই। তারা জানেন এবং বোঝেন। তারপরও কথা থেকে যায়? সংবাদমাধ্যমের কাজ কি তাহলে! বিশ্বব্যাপী এখন এই প্রশ্ন ক্রমশ জোরালো হচ্ছে। কারণ, দেশে দেশে শাসকেরা ভিন্নমতকে অপছন্দের তালিকায় নিয়ে গেছেন।
তারা শুধু প্রশংসা শুনতে চান। উন্নয়ন সাংবাদিকতাই তাদের পছন্দ। এখানেও প্রশ্ন থেকে যায়। কেউ যদি উন্নয়নের পেছনের গল্প খুঁজেন তখনই যত সব বিড়ম্বনা। মামলার জালে তাকে ফেলে দেয়া হয়। নানা কিসিমের জাল। এর মধ্যে নতুন যোগ হয়েছে আইসিটি। আগে জানতাম কারো মান গেলে তিনি নিজেই ফরিয়াদ জানাতেন। নিতেন আইনের আশ্রয়। এখন দেখছি অন্য যে কেউ ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তি না হয়েও মান উদ্ধারের চেষ্টা করেন। সফলও হয়ে যান। এ কেমন আইন?
সহকর্মীদের বকাঝকা করি। বলি কত কিছুই তো ঘটে চলেছে। চোখ বুজে থাকার অর্থ কি? দুয়েকজন জবাব দেন। বলেন, লিখে চাকরি হারাবো নাকি! মানে খোঁজার চেষ্টা করি। বলি চাকরিতো সম্পাদকের কথায় যায় বা যেতে পারে। আবার পারে না। মজার কথা বললেন একজন সহকর্মী। সম্পাদক জানার আগেই চাকরি খতমের ঘটনা নতুন কি? বিশেষ বিশেষ বার্তায় চাকরি চলে যায়। নিজে এর প্রতিবাদ করে পদত্যাগ করেছি অন্তত দুবার।
সহকর্মী খুশি হলেন না। বললেন, চারদিকে খোঁজ নিয়ে দেখুন কি হচ্ছে? ইদানীং অবশ্য আমি বেশি খবর রাখি না। রাখলে অসুস্থ হয়ে যেতে পারি। এই যখন অবস্থা একজন সহকর্মী বললেন, নিজেরাই লিখি না। সে আবার কি? নিজের কথা যেমন ভাবি, তেমনি সহকর্মীদের কথাও। যদি কোনো প্রতিক্রিয়া হয়। কাগজ যদি সংকটে পড়ে তখন সবাই বলবে কী দরকার ছিল?
হালে ‘ইদানীং’ শব্দটা বেশ পরিচিতি পেয়েছে। বিশেষ করে নিউজ রুমে। এ থেকে আমরা কী বুঝলাম। সহকর্মীরা সেলফ সেন্সরশিপ বড্ড বেশি রপ্ত করে ফেলেছেন। তারা নিজেরাই ঠিক করেন, কোনটা যাবে, না যাবে। সম্পাদকের কাজ গৌণ। নিজের জীবন দিয়ে যখন দেখি তখন হতাশ হই। আমি তো লিখে চাকরি হারিয়েছি একাধিকবার। সেলফ সেন্সরশিপের কাছে নিজেকে বিলিয়ে দিইনি। অনেকে বলতেন পাগলামি। আমি বিনীতভাবে তাদের বলতাম এটা যদি পাগলামি হয়ে থাকে তাহলে মহান এই পেশায় এসেছিলাম কেন? ঢাকা শহরে আলু-পটলের ব্যবসা করলেও এই পয়সা রোজগার করা সম্ভব!
সেলফ সেন্সরশিপ কাবু করে ফেলেছে সংবাদ মাধ্যমকে। এর মধ্যে যদি ফেইক নিউজ ভর করে! কোনটা আসল কোনটা নকল সংবাদ তা বাছাই করা কঠিন। জীবনের শুরুতে দেখেছিলাম সাংবাদিক ইউনিয়নগুলো কি পেশাদারিত্ব দেখায়। এখন তারা নিজেরাই বিভক্ত। রাজনীতি তাদের গ্রাস করেছে। তাই বলে কি আগে সাংবাদিকরা রাজনীতি করতেন না? অবশ্যই করতেন।
প্রয়াত মানিক মিয়া, জহুর হোসেন চৌধুরী, আবদুস সালাম কিংবা এবিএম মূসার ভেতরে রাজনীতি ছিল। বলা হয়ে থাকে, মানিক মিয়ারা রাজনীতি নিয়ন্ত্রণ করতেন। এখন দল আগে এরপরে সাংবাদিকতা। এর সুযোগ নিচ্ছেন শাসকেরা। আমরাও কমিটমেন্ট ভুলে গিয়ে মিছিলে যোগ দিচ্ছি। যে মিছিল আমাকে দিচ্ছে বাড়তি সুবিধা। পরিস্থিতির দ্রুত অবনতি দেখছি। আর ভাবছি কী দরকার এ নিয়ে ভাববার। সব ভুলে আমিও তো সেলফ সেন্সরশিপ চর্চা করতে পারি। ক্ষমা করবেন পাঠক। (মানবজমিন)

এ রকম আরো খবর

রিদম আয়োজিত ‘ভালোবাসার রেশ’ অনুষ্ঠান ১৭ ফেব্রুয়ারী

বাংলা পত্রিকা ডেস্ক: ভ্যালেন্টাইন ডে দিবস উপলক্ষ্যে নিউইয়র্কে ‘ভালোবাসার রেশ’বিস্তারিত

  • সিলেটে কুহিনুর আহমদকে গ্রেফতারের নিন্দা ও মুক্তি দাবী
  • ক্ষমতা নিয়ে ইসি-ট্রাষ্টি বোর্ডের মধ্যে টাগ অব ওয়ার
  • মডেলিং সহজ কাজ নয়, চাই আতœবিশ্বাস
  • নারী আসনে মনোনয়ন চান মোমতাজ-ফরিদা
  • ‘বিএনপি রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসের শিকার
  • নতুন ভবণ ও ফিউনারেল হোমন প্রতিষ্ঠান পরিকল্পনা
  • জালালাবাদ এসোসিয়েশনের সাধারণ সভায় সিদ্ধান্ত ভবন প্রতিষ্ঠা ও নির্বাহী কমিটির মেয়াদকাল দুই বছর
  • ৯ বছরেই কলেজ ছাত্র বাংলাদেশী কায়রান
  • নিউইয়র্কে ‘শিল্প ও দ্রোহের কুড়ি বছর’ অনুষ্ঠান
  • ফোবানা কনভেনশন ইনক’র প্রতিবাদ
  • মদন মোহন কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ সংবর্ধিত
  • ‘বেঙ্গল ডেমোক্রেটিক ক্লাব’র শুভযাত্রা
  • error: Content is protected !! Please don\'t try to copy.