র্সবশেষ শিরোনাম

শনিবার, জানুয়ারি ১৯, ২০১৯

বাংলা পত্রিকা

Main Menu

সপ্তাহের শুরুতে সম্পূর্ণ নতুন সংবাদ নিয়ে

‘ইতিহাস গড়তে আসিনি, আমরা পরিবর্তনের জন্য এসেছি’

বাংলা পত্রিকা ডেস্ক: মঙ্গলবার (৬ নভেম্বর) অনুষ্ঠিত যুক্তরাষ্টের মধ্যবর্তী নির্বাচনে বিজয়ী হয়েছেন রেকর্ডসংখ্যক প্রার্থী। রাজধানী ওয়াশিংটিন ডিসিসহ সারাদেশের রাস্তায় প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের অভিষেক অনুষ্ঠানের বিরোধিতা করে নারীদের বিক্ষোভের দুই বছরেরও কম সময়ের মধ্যে এত সংখ্যক নারীকে পার্লােমেন্টে পাঠাল যুক্তরাষ্ট্রের ভোটাররা। ট্রাম্পের প্রথম দফা ক্ষমতার মেয়াদের জন্য গণভোট হিসেবে বিবেচিত এই মধ্যবর্তী নির্বাচনের পর এসব নব নির্বাচিত ভবিষ্যৎ আইনপ্রণেতারা হয়তো পুরোপুরি প্রভাব বিস্তার করবেন দেশের রাজনীতিতে, বিশেষ করে ডেমোক্র্যাট পার্টির রাজনীতিতে।
ভোটাররা স্থানীয় সময় বুধবার সকাল পর্যন্ত কমপক্ষে ৯৯ জন মহিলা প্রার্থীকে হাউজ অব রিপ্রেজেন্টেটিভসে যাওয়ার যুদ্ধে জিতিয়েছেন, যেখানে আগের রেকর্ড ছিল ৮৪ জন মহিলা প্রার্থীর বিজয়। বার্তা সংস্থা এপির তথ্য অনুযায়ী সবমিলে ২৩৭ জন মহিলা প্রার্থী প্রধান প্রধান বড় পার্টি থেকে নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন।
লস অ্যাঞ্জেলেস টাইমের খবর অনুযায়ী, প্রতিনিধি পরিষদ ছাড়াও সিনেটে ১০টি আসন ও ৯টি অঙ্গরাজ্যে গভর্নর নির্বাচিত হয়েছে মহিলা প্রার্থীরা। সর্বমোট ১১২ জন বিজয়ী মহিলা প্রার্থীর মধ্যে ৯৫ জন ডেমোক্র্যাট এবং ১৭ জন রিপাবলিক পার্টির।
(উপরে) আলেকজান্দ্রিয়া ওকাসিও-কর্টেজ, আয়ান্না প্রেসলি, (নিচে) ইলহান ওমর ও ডেব হাল্যান্ড। ছবি : সংগ্রহ
আমেরকিার ডান ও বামপন্থী রাজনীতিবিদরা নির্বাচনে মহিলাদের এ অসাধারণ বিজয়কে নারীর ক্ষমতায়ন হিসেবে উল্লেখ করেছেন। বর্তমানে আমেরিকার নারীরা শুধু উল্লেখযোগ্য মাত্রায় অফিসেই যাবেন না বরং তাদের মধ্যে অনেকে পুরুষশাসিত পার্টির অফিসগুলোতে আনুষ্ঠানিক ভূমিকা পালন করবেন। এসব নারীরা তৃণমূল থেকে সূচনা করেছেন এবং ডোনার হিসেবে আগের নির্বাচনগুলো থেকে বেশি ভূমিকা পালন করেছেন।
দেশব্যাপী বিজয় বক্তৃতায় এ সব নারী প্রর্থীরা ভোটারদের যুগান্তকারী সিদ্ধান্তের স্বীকৃতি দিয়েছেন।
ম্যাসাচুসেটস অঙ্গরাজ্য থেকে সিনেটে নির্বাচিত হওয়া প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ নারী আয়ান্না প্রেসলি বলেছেন, ভোটের মাধ্যমে সরকারি অফিসে মহিলাদের আরো বেশি অংশগ্রহণে যারা তাদের মতামত ব্যক্ত করেছেন, এমন অনেক ভোটার, এবং দর্শনীয় ও সাহসী মহিলার সাথে মঞ্চ শেয়ার করতে পেরে আমি গর্বিত। তিনি আরো বলেন, আমরা ইতিহাস গড়তে আসিনি, আমরা পরিবর্তনের জন্য এসেছি। আজকের এই সন্ধ্যার ঐতিহাসিক গুরুত্ব আমার কাছে কোনোভাবেই কম নয়।
সাবেক স্বাস্থ্য ও মানবসেবা মন্ত্রী ডোনা শালালা জানিয়েছেন, তার বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন দুজন মহিলা প্রার্থী। শালালা নিজেও এবারই প্রথম কোন আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন। শালালা বলেন, এই বছর মহিলাদের বছর। রিপাবলিক বা ডেমোক্র্যাট- যে দলের সমর্থক হোক না কেন, নারীরা এখন নিজেদের আরো বেশি গুরুত্বপূর্ণ স্থানে দেখতে চায়।
এ বছর প্রতিনিধি পরিষদে শুধু নারী সংখ্যা-ই বৃদ্ধি পায়নি বরং এর সাথে সাথে বিভিন্ন পেশা থেকে আসা আইন প্রণেতারা কংগ্রেসের বৈচিত্রতা বাড়িয়েছেন। সূত্র: ডেইলি সাবাহ

এ রকম আরো খবর

শেখ হাসিনা এমন নির্বাচন না করলেও পারতেন

বাংলা পত্রিকা ডেস্ক: টানা প্রায় ১০ বছর প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ক্ষমতায়বিস্তারিত

  • নির্বাচন নিয়ে জাতিসংঘ-যুক্তরাজ্যের কড়া সতর্কবার্তা
  • জর্জ বুশ সিনিয়র মারা গেছেন
  • ফিরহাদ হাকিম: স্বাধীনতা-উত্তর কলকাতার এই প্রথম মুসলমান মেয়র ঠিক কেমন মানুষ?
  • নিউইয়র্ক ষ্টেট সিনেটর হোজে পেরাল্টার পরলোকগমন
  • অবৈধ উপায়ে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশকালে ৬ বাংলাদেশী গ্রেফতার
  • নিউইয়র্ক টাইমসে অধ্যাপক খালেদ ফাদেলের কলাম ॥ ইমামদের দিয়ে গাওয়ানো হচ্ছে রাজতন্ত্রের গান : মক্কা-মদিনাকে অপব্যবহার করছে রাজপরিবার
  • বিএনপির পাশে চীন, অভিযোগ হাসিনার দলের
  • বাংলাদেশে সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানে যুক্তরাষ্ট্র কংগ্রেসের হস্তক্ষেপ কামনা
  • ট্রাম্পের বিরুদ্ধে সিএনএনের মামলা : ‘স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী চাকরিচ্যুত হতে পারেন’
  • ক্যালিফোর্নিয়ায় ভয়াবহ দাবানলে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৫০
  • ক্যালিফোর্নিয়ায় দাবানলে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৩১
  • যে কারণে মার্কিন মধ্যবর্তী নির্বাচন গুরুত্বপূর্ণ
  • error: Content is protected !! Please don\'t try to copy.