র্সবশেষ শিরোনাম

শনিবার, মার্চ ২৩, ২০১৯

বাংলা পত্রিকা

Main Menu

সপ্তাহের শুরুতে সম্পূর্ণ নতুন সংবাদ নিয়ে

নিউইয়র্কে দেবী’র সফল প্রদর্শণী

মিডিয়ার মুখোমুখী নায়িকা জয়া আহসান

বাংলা পত্রিকা রিপোর্ট: বাংলাদেশ ও কলকাতার বিপুল জনপ্রিয় অভিনয় শিল্পী জয়া আহসান অভিনিত ও প্রযোজিত ‘দেবী’ সিনেমা’র আরো সফল প্রদর্শীর হলো নিউইয়র্কে। বাংলাদেশসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মতো যুক্তরাষ্ট্রেও মহাসমারোহে চলেছে ‘দেবী’। তারই সেলিব্রেশন হলো শুক্রবার (১৪ ডিসেম্বর) নিউইয়র্কে আয়োজিত দেবী’র বিশেষ এক প্রদর্শনীর মাধ্যমে। এদিকে সর্বাধিক শহরে দেবী’র প্রদর্শনীর রেকর্ড গিনেস বুক অফ ওয়ার্ল্ড বুকে স্থানের জন্য দেবীর পরিবেশক বায়েস্কোপ ফিল্মস দাবী জানিয়েছেন। অপরদিকে নিউইয়র্কের মিডিয়ার সাথে খোলামেলা আলোচনায় দেবী’র নায়িকা জয়া আহসান বলেছেন, বাংলাদেশের ছবি হারিয়ে যায়নি। আমরা চাইলেই ভালো ছবি করতে পারি। তিনি বলেন, বর্তমানে বাংলাদেশে ভালো ছবি তৈরীর জন্য একমাত্র বাংলাদেশ সরকার-ই শক্তিশালী প্রযোজক।
যুক্তরাষ্ট্রের বায়েস্কোপ ফিল্মসের আয়োজনে শুক্রবার সন্ধ্যায় নিউইয়র্কের লং আইল্যান্ড সিটির একটি রেষ্টুরেন্টে বাংলাদেশী মিডিয়ার সাথে খোলামেলা আলোচনায় অভিনেত্রী জয়া আহসান সহ সংশ্লিস্ট এসব কথা বলেন।
এর আগে জ্যামাইকা মাল্টিপ্লেক্স সিনেমা হলে ছবিটি প্রদর্শিত হয়। দেবী ছবির বিশেষ এই প্রদর্শনীতে জয়া আহসান উপস্থিত ছিলেন। এসময় তিনি নিউইয়র্ক তথা যুক্তরাষ্ট্রের দর্শকদের সাথে সরাসরি কথা বলেন, শ্রদ্ধা জানান বাংলাদেেেশর স্বাধীনতা যুদ্ধে সকল শহীদ ও বৃদ্ধিজীবীসহ সদ্য প্রয়াত জনপ্রিয় চিত্র পরিচালক আমজাদ হোসেনকে।
মিডিয়ার সাথে জয়া আহসানের সাথে মুখোমুখি অনুষ্ঠান বিশেষ অতিথি ছিলেন জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি মাসুদ মিন মোমেন ও নিউইয়র্কে বাংলাদেশের কনসাল জেনারেল সাদিয়া ফয়জুননেসা। হাসানুজ্জামান সাকির সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন বায়েস্কোপ ফিল্মসের স্বত্তাধিকারী ডা. রাজ হামিদ ও রুবনা রশীদ।
অনুষ্ঠানে এক প্রশ্নের উত্তর জয়া আহসান বলেন, বাংলাদেশ আর কলকাতা দু’ জায়গাতেই অভিনয় করার পরিবেশ রয়েছে এবং আমি স্বাচ্ছন্দবোধ করি। তবে বাংলাদেশ আমার প্রিয় জায়গা। আর কলকাতার দর্শকরা আমাকে গ্রহণ করায় সেখানটাও আমার প্রিয় হয়ে উঠেছে।
অপর এক প্রশ্নের উত্তরে জয়া বলেন, আসলে ইতিহাস আর ভাগ্য বাংলা ভাষাবাসীদের বিভক্ত করে ফেলেছে। আর কলকাতা বা ভারতে বাংলাদেশের নাটক-সিনোমা না দেখানো দূর্ভাগ্য। ঞযতো এই সমস্যা কেটে যাবে। আকাশ সংস্কৃতি সবার জন্যই খোলা থাকা উচিৎ।
অপর এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, বাবার ইচ্ছে ছিলো আমি কূটনীতিক হই। কিন্তু ভাগ্য আমাকে অভিনয়ে নিয়ে আসলো। ছবি: নিহার সিদ্দিকী।

এ রকম আরো খবর

২১ ফেব্রুয়ারী ফকির আলমগীরের ৬৯তম জন্মদিন

বাংলা পত্রিকা ডেস্ক: দেশবরেণ্য গণসঙ্গীতশিল্পী ফকির আলমগীরের ৬৯তম জন্মদিন ২১বিস্তারিত

চলে গেলেন আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল

বাংলা পত্রিকা ডেস্ক: প্রখ্যাত সঙ্গীত পরিচালক, গীতিকার, সুরকার ও বীরবিস্তারিত

  • এফডিসি ও ঢাকার নাটকপাড়া এখন শূন্য : সব নায়িকাই এমপি হতে চায়
  • শীতের নিউইয়র্ক গরম করলেন নগর বাউল জেমস
  • বহুমাত্রিক আমজাদ হোসেন
  • গোলাপীদের আর দেখবে কে
  • সুনসান নীরবতা, স্তব্ধ পুরো বাড়ি
  • চলে গেলেন আমজাদ হোসেন
  • বর্ণাঢ্য আয়োজনে ৫ম জেমিনি স্টার অ্যাওয়ার্ড বিতরণ
  • ঠান্ড নিউইয়র্ক-কে কাঁপানোর চেষ্টা করবো : শো ২৩ ডিসেম্বর
  • এটিএন বাংলার ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান কমেডি আওয়ার ৭ম বর্ষে
  • বাংলাদেশের গায়িকারা
  • শান্তনুর গানে বিমোহিত দর্শক শ্রোতা
  • error: Content is protected !! Please don\'t try to copy.