র্সবশেষ শিরোনাম

বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ১৮, ২০১৯

বাংলা পত্রিকা

Main Menu

সপ্তাহের শুরুতে সম্পূর্ণ নতুন সংবাদ নিয়ে

পিছু হটলেন ট্রাম্প!

বাংলা পত্রিকা ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্র সরকার টানা ৩৫ দিন আংশিক অচল হয়ে থাকার পর তীব্র চাপের মুখে অবশেষে নিজের কঠোর অবস্থান থেকে সরে এসেছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। মেক্সিকো সীমান্তে দেয়াল নির্মাণের জন্য পর্যাপ্ত অর্থ বরাদ্দ ছাড়াই সাময়িকভাবে তিনি খন্ডকালীন বাজেট অনুমোদন করেছেন। এর ফলে আপাতত আমেরিকান সরকারে অচলাবস্থার নিরসন হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের লাখ লাখ ফেডারেল কর্মকর্তা আবারো তাদের বেতন-ভাতা পাবেন। বিশ্লেষকরা বলছেন, আমেরিকান সরকারে ইতিহাসের দীর্ঘতম অচলাবস্থার ঘটনায় প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প রাজনৈতিকভাবে প্রতিহত হয়েছেন। এক মাসেরও বেশি সময় ধরে নিজের দাবিতে অনড় থাকলেও অবশেষে তাকে নতি স্বীকার করতে হয়েছে। গত ডিসেম্বর থেকে ডেমোক্র্যাটরা সরকারে অচলাবস্থা কাটানোর জন্য প্রেসিডেন্টের প্রতি অব্যাহতভাবে অনুরোধ করে আসছেন। মেক্সিকো সীমান্তে দেয়াল নির্মাণে অর্থ বরাদ্দ নিয়ে আলোচনায় বসার পূর্বেই তারা খন্ডকালীন বাজেট অনুমোদন করার জন্য ট্রাম্পের প্রতি আহ্বান জানান।
৫ সপ্তাহ ধরে নিজের অবস্থানে অনড় থাকার পর শুক্রবার (২৫ জানুয়ারী) তিনি ডেমোক্রেটদের কথামতো ওই বাজেট অনুমোদনে সম্মত হন। যদিও তা সীমিত সময়ের জন্য। সিএনএনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এক মাসেরও বেশি সময় ধরে সরকারে যে অচলাবস্থা চলছে, ট্রাম্পের অবস্থান পরিবর্তনের ফলে তা নিরর্থক বিষয়ে পরিণত হয়েছে। অথচ এর কারণেই লাখ লাখ ফেডারেল কর্মকর্তা বেতন-ভাতা না পেয়ে ভোগান্তির শিকার হয়েছেন। প্রেসিডেন্টের ইতিবাচক ইঙ্গিত পেয়ে যুক্তরাষ্ট্রের আইনপ্রণেতারা অচল হয়ে থাকা বিভিন্ন এজেন্সিগুলোকে সক্রিয় করতে তাৎক্ষণিক উদ্যোগ গ্রহণ করেন। অচলাবস্থা নিরসনের জন্য প্রতিনিধি পরিষদ ও সিনেটে পাস হওয়া বিলে শুক্রবার রাতেই স্বাক্ষর করেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। ফলে ইতিহাসের দীর্ঘতম অচলাবস্থার অবসান ঘটে। পরে হোয়াইট হাউসের রোজ গার্ডেনে কথা বলেন তিনি। তবে এসময় পরাজয় মেনে নেয়ার মতো মনোভাব দেখাননি তিনি। বরং এই সংকটকে জাতীয় নিরাপত্তার প্রশ্ন হিসেবে উল্লেখ করে তিনি আবারো অচলাবস্থা সৃষ্টির সতর্কবার্তা দেন। জানান, আইনপ্রণেতারা সীমান্তে নতুন দেয়াল নির্মাণে বরাদ্দ না দিলে আবারো সরকার অচল হয়ে পড়তে পারে। ট্রাম্প বলেন, আমার হাতে খুব শক্তিশালী বিকল্প রয়েছে। কিন্তু এখনই আমি তা ব্যবহার করতে চাই না। কংগ্রেস যদি এই বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত না দেয়, তাহলে ১৫ ফেব্রয়ারীতে সরকার আবারো অচল হয়ে যাবে। নয় তো সংবিধান অনুযায়ী জরুরি অবস্থা জারির ক্ষমতা ব্যবহার করবো। যেন আমরা ভালো নিরাপত্তা ব্যবস্থা লাভ করতে পারি। এদিন ট্রাম্পের বক্তৃতা শোনার জন্য মন্ত্রিসভার প্রায় সব সদস্যই রোজ গার্ডেনে উপস্থিত ছিলেন। তারা হাত তালি দিয়ে প্রেসিডেন্টকে উৎসাহ জানান। সিএনএনের পৃথক একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, জরুরি অবস্থা জারির একটি খসড়া ঘোষণাপত্র এরই মধ্যে প্রস্তুত করে রেখেছে হোয়াইট হাউস। ওই ঘোষণাপত্র কার্যকর করা হলে ট্রাম্প তার বহুল আকাঙ্ক্ষিত দেয়াল নির্মাণ প্রকল্পে কংগ্রেসের অনুমতি ছাড়াই নিজের ইচ্ছামতো শত শত কোটি ডলার অর্থ বরাদ্দ করতে পারবেন।

এ রকম আরো খবর

‘ইনফিনিটি অ্যাওয়ার্ড’ পেলেন বাংলাদেশের শহীদুল আলম

সালাহউদ্দিন আহমেদ: বাংলাদেশের কিংবদন্তি আলোকচিত্রী, বিশ্বখ্যাত ‘টাইম’ ম্যাগাজিনের ২০১৮ সালেরবিস্তারিত

ইয়েলো ক্যাবী বিন্দার সিং ছুরিকাহত

বাংলা পত্রিকা রিপোর্ট: নিউজিল্যান্ডের মসজিদে জুমার নামাজে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনারবিস্তারিত

নিউইয়র্কের ৪১% মানুষ জীবন চালাতে হিমশিম খাচ্ছে : জরিপ

বিশেষ প্রতিনিধি: অভিবাসীদের অঙ্গরাজ্য হিসেবে সবার প্রথম পছন্দ যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কবিস্তারিত

  • নিউজিল্যান্ডে মসজিদে হামলা : নিহত বেড়ে ৪৯
  • বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত আইএসের শামীমা নাগরিকত্ব হারাচ্ছেন
  • সীমান্তে জরুরি অবস্থা জারি ট্রাম্পের
  • সংসদ নির্বাচন: বাংলাদেশে গণতন্ত্র রক্ষায় ট্রাম্প প্রশাসনকে পদক্ষেপ নেবার আহ্বান ইউএস কংগ্রেসের
  • ডন পত্রিকার কলাম : ‘বাংলাদেশ পাকিস্তানকে পেছনে ফেলেছে যেভাবে’
  • ৬ বছরের মধ্যে আমেরিকান সেনাবাহিনীতে আত্মহত্যার হার সর্বোচ্চ
  • জাতিসংঘের সাথে বাংলাদেশ অত্যন্ত ঘনিষ্ট সম্পর্ক বজায় রেখে চলেছে : রাষ্ট্রদূত মোমেন
  • শীর্ষ ১০ নিরাপত্তা চিন্তাবিদের তালিকায় শেখ হাসিনা
  • পাকিস্তানে পিটিএম : আরেকটি ‘বাংলাদেশ’ গড়ে উঠছে?
  • শেখ হাসিনা এমন নির্বাচন না করলেও পারতেন
  • হাসিনার কারচুপির নির্বাচনের বিরুদ্ধে একাট্টা পশ্চিমাবিশ্ব
  • error: Content is protected !! Please don\'t try to copy.