র্সবশেষ শিরোনাম

বৃহস্পতিবার, মার্চ ২১, ২০১৯

বাংলা পত্রিকা

Main Menu

সপ্তাহের শুরুতে সম্পূর্ণ নতুন সংবাদ নিয়ে

ঐতিহাসিক সাতই মার্চ আজ

বাংলা পত্রিকা ডেস্ক: আজ ঐতিহাসিক সাতই মার্চ। বাঙালী জাতির স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে স্বর্ণাক্ষরে লেখা অবিস্মরণীয় গৌরবের এক অনন্য দিন। সুদীর্ঘকালের আপসহীন আন্দোলনের এক পর্যায়ে ১৯৭১ সালের এই দিনে ঐতিহাসিক রেসকোর্স ময়দানে (বর্তমানে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান) বাঙালী জাতির অবিসংবাদিত নেতা, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালী, ‘জাতির পিতা’ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এক উত্তাল জনসমুদ্রে বাংলাদেশের স্বাধীনতার ডাক দিয়েছিলেন। ‘….তোমরা আমার ভাই, তোমরা ব্যারাকে থাকো, কেউ কিছু বলবে না। গুলি চালালে আর ভাল হবে না। সাত কোটি মানুষকে আর দাবায়ে রাখতে পারবা না। বাঙালী মরতে শিখেছে, তাদের কেউ দাবাতে পারবে না। রক্ত যখন দিয়েছি রক্ত আরো দেব। এই দেশের মানুষকে মুক্ত করে ছাড়ব ইনশাআল্লাহ। এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম আমাদের স্বাধীনতার সংগ্রাম।’ বঙ্গবন্ধুর এই তেজদৃপ্ত ঘোষণাই ছিল প্রকৃতপক্ষে আমাদের স্বাধীনতার ভিত্তি। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চ ভাষণ বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিহ্য হিসেবে ২০১৭ সালের জাতিসংঘের শিক্ষা বিজ্ঞান ও সাংস্কৃতিক বিষয়ক সংস্থা ইউনেস্কো স্বীকৃতি দিয়েছে।
ঐতিহাসিক সাতই মার্চ যথাযথ মর্যাদায় পালনের জন্য কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ দেশব্যাপী ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে: আজ ভোর সাড়ে ৬টায় বঙ্গবন্ধু ভবন ও দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় এবং দলীয় পতাকা উত্তোলন, সকাল ৭টায় বঙ্গবন্ধু ভবন প্রাঙ্গণে ‘জাতির পিতা’ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধার্ঘ্য অর্পণ। বিকাল ৩টায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে। এতে সভাপতিত্ব করেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আলোচনায় জাতীয় নেতৃবৃন্দ ও বরেণ্য বুদ্ধিজীবীগণ অংশ নিবেন।
১৯৭০ সালে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদ নির্বাচনে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে। কিন্তু পাকিস্তানের সামরিক শাসকগোষ্ঠী বিজয়ী আওয়ামী লীগ তথা বাঙালিদের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরে নানামুখী ষড়যন্ত্র শুরু করে। তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সঙ্গে আলোচনার আড়ালে সামরিক অভিযানের প্রস্তুতি নিতে শুরু করে পাকিস্তানের সামরিক জান্তা। এই পটভূমিতে সাতই মার্চ রেসকোর্স ময়দানে ‘জাতির পিতা’ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পাকিস্তানী শাসকগোষ্ঠীর রক্তচক্ষুকে উপেক্ষা করে অসীম সাহসিকতায় তার বলিষ্ঠ কণ্ঠে অসহযোগ আন্দোলনের ডাক দেন। বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক এই ভাষণ থেকেই দেশের মুক্তিকামী মানুষ ঘরে ঘরে চূড়ান্ত লড়াইয়ের প্রস্তুতি নিতে শুরু করে।
এদিকে ৭ মার্চ উপলক্ষে বুধবার দেওয়া এক বাণীতে রাষ্ট্রপতি মোঃ আবুদল হামিদ বলেছেন, ‘জাতির পিতা’ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ কেবল আমাদের নয় বিশ্ববাসীর জন্য প্রেরণার চিরন্তন উৎস হয়ে থাকবে।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে অমিত শক্তির উৎস ছিল বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ। প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর এই ভাষণ আমাদের ইতিহাস এবং জাতীয় জীবনের এক অপরিহার্য ও অনস্বীকার্য অধ্যায়; যার আবেদন চিরঅম্ল¬ান।’
ঐতিহাসিক সাতই মার্চ উপলক্ষ্যে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ এদিন সন্ধ্যায় নিউইয়র্কের জ্যাকসন হাইটসের পালকি পার্টি সেন্টারে এক আলোচনা সভার আয়োজন করেছে বলে সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সামাদ আজাদ জানিয়েছেন।

এ রকম আরো খবর

প্রধানমন্ত্রী সবাইকে মিলেমিশে কাজ করতে বলেছেন : নুর

বাংলা পত্রিকা ডেস্ক: গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষেবিস্তারিত

  • বার্গার দিয়ে নাশতা, মোরগ পোলাও দিয়ে নৈশভোজ
  • শোভন রাজনৈতিক উদারতা দেখিয়েছে : প্রধানমন্ত্রী
  • ডাকসু নির্বাচন : ভিপি নুরুল হক নুরু, জিএস গোলাম রাব্বানী
  • অবশেষে শপথ নিলেন সুলতান মনসুর 
  • ওবায়দুল কাদেরকে বহনকারী এয়ার অ্যাম্বুলেন্স পৌঁছেছে সিঙ্গাপুরে
  • ওবায়দুল কাদেরকে দেখতে হাসপাতালে বিএনপির শীর্ষ নেতারা
  • কাদেরকে স্থানান্তর প্রশ্নে বিএসএমএমইউ ভিসিকে প্রধানমন্ত্রীর ধমক!
  • সংকটাপন্ন ওবায়দুল কাদের
  • দৈনিক সময়ের আলোর প্রকাশনার শুভ উদ্বোধন 
  • বাংলাদেশে প্রকাশিত পত্রিকার সংখ্যা ২ হাজার ৬৫৪টি 
  • পিআইবি’র মহাপরিচালক শাহ আলমগীর মারা গেছেন
  • error: Content is protected !! Please don\'t try to copy.