র্সবশেষ শিরোনাম

শনিবার, মে ২৬, ২০১৮

বাংলা পত্রিকা

Main Menu

সপ্তাহের শুরুতে সম্পূর্ণ নতুন সংবাদ নিয়ে

আ.লীগ নেতা খান মোশাররফের মৃত্যু ও কিছু স্মৃতি কথা!

চিরবিদায় নিয়ে দুনিয়া ছেড়ে চলে গেছেন দক্ষিণাঞ্চলের বর্ষীয়ান আওয়ামী লীগ নেতা ও পটুয়াখালী জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা খান মোশাররফ হোসেন। গত ১ নভেম্বর বুধবার মধ্য রাতে ভারতের শংকর নেত্রালয়ের একটি আবাসিক হোটেলে তিনি ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহি … রাজিউন)। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৬৮ বছর। তাঁর রুহের মাগফেরাত কামনা করে শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়ে আমার কিছু স্মৃতিকথার অবতাড়না করতে চাই।
৯০ দশকের রাজনীতিতে সহনশীলতা, শ্রাদ্ধাবোধ, ভালবাসা ছিল আমাদের সকলের প্রথম বৈশিষ্ট। বর্তমান বাংলাদেশের ধংসাত্বক রাজনীতির প্রেক্ষাপটে চিন্তা করলে হয়তবা আমার স্মৃতিকথা টুকু সকলের অবিশ্বাস্যই রয়ে যাবে! তারপরেও আমার ব্যক্তিগত স্মৃতিকথা টুকু বলে নিজেকে দায় মুক্ত করতে চাই!
খান মোশাররফ সাহেব বরাবরই আওয়ামী লীগের রাজনীতি করেছেন, তার সাথে আমার কোনদিন পরিচয় ছিল না। আমি করতাম বিএনপি রাজনীতি অর্থাৎ ছাত্রদল আর তিনি তখন পটুয়াখালী সদর আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক। ১৯৯১ সনের নভেম্বর মাসের কোন এক সময় (তারিখ মনে করতে পারছি না) পটুয়াখালী সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ গেইটে ছাত্র ইউনিয়ন ও ছাত্রদলের নেতা-কর্মীদের মারামারি হয়েছিল। আমি তখন সদ্য ছাত্র রাজনীতিতে আসা ছাত্রদলের একজন কর্মী, তেমন নাম ডাক হয়ে ওঠেনি। আউয়াল দারোগা নামে এক দারগা ছিলেন তিনি সহিংসতায় জড়িত কোন অপরাধীকে গ্রেফতার করতে না পেরে আমাকে সহ পাচজন নির্দোষ ছাত্রকে গ্রেফতার করেছিলেন। আমি তখন সদ্য মনোনীত শহীদ জিয়া ছাত্রাবাসের হোষ্টেল মনিটর হিসাবে দায়ীত্ব পালন করতাম, তাই মুহুর্তেই খবর পৌছে যায় কলেজে। কলেজ থেকে স্থানীয় বিএনপি ও আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দের কাছে। সেদিন কোন দলমতের ভেদাভেদ না করে আমি সহ বাকী পাঁচজনকেই নিজ দায়ীত্বে ছাড়িয়ে এনেছিলেন জনাব খান মোশাররফ সাহেব। এমনকি তিনি আউয়াল দারগাকে আমাদের সামনেই প্রশ্নবিদ্ধ করে তুলেছিলেন আমাদের মত নিষ্পাপ ছাত্রদের কেন গ্রেফতার করা হয়েছিল! সেদিনের সেই মহানুভবতা আমাকে তাঁর প্রতি শ্রদ্ধাশীল করে তুলেছিল।
তাই কোন দলীয় দৃষ্টিকোন থেকে নয় একজন মানুষ হিসাবেই খান মোশাররফের রুহের মাগফেরাত কামনা করছি। আল্লাহ যেন তাঁকে জান্নাতুল ফেরদাউস দান করেন, আমীন!

এ রকম আরো খবর

ঠেঙ্গামারা যখন ইয়েল ইউনিভার্সিটিতে

(আবদুস সামাদ কিভাবে হয়ে গেলেন হোসনে আরা বেগম ? ভিক্ষুকেরবিস্তারিত

বঙ্গবন্ধু শিখিয়েছিলেন, রাজনীতি মানে ভালোবাসা

ড. কামাল হোসেন: বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চ ঘোষণাকে কেন্দ্র করে জল্পনা-কল্পনা যখনবিস্তারিত

মুক্তিযুদ্ধে বঙ্গবন্ধুর একক নেতৃত্ব প্রশ্নাতীত

বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বীরউত্তম: শোকের মাস আগস্ট নিয়ে কোনো কথা নেই।বিস্তারিত

  • কাছ থেকে দেখা সেই হত্যাকান্ড
  • error: Content is protected !! Please don\'t try to copy.