র্সবশেষ শিরোনাম

রবিবার, জুন ২৪, ২০১৮

বাংলা পত্রিকা

Main Menu

সপ্তাহের শুরুতে সম্পূর্ণ নতুন সংবাদ নিয়ে

অদৃশ্য দেয়াল তৈরী করছেন ট্রাম্প : ইমিগ্রান্টদের সম্পর্কে প্রেসিডেন্টর অশ্লীল মন্তব্যে তোলপাড়

জেসিকা তারতিলা: একটি কদর্য মন্তব্যকে কেন্দ্র করে ইমিগ্র্যান্টদের বিরুদ্ধে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের ঘৃনা বিদ্বেষের একটি চাঞ্চল্যকর ঘটনা প্রকাশ করেছে বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় দ্য নিউইয়র্ক টাইমস। গত রোববার (২৪ ডিসেম্বর) নিউইয়র্ক টাইমসে প্রকাশিত এই রিপোর্ট নিয়ে এখন চলছে বিশ্ব্যাপী হুলস্থুল। ব্যাপক সমালোচনা ও নিন্দার মুখে গতানুগতিকভাবেই হোয়াট হাউসের পক্ষ থেকে আত্মপক্ষ সমর্থন করে রিপোর্টটিকে ভূয়া বা ‘ফেইক’ বলে অভিহিত করা হয়েছে।
নিউইয়র্ক টাইমস-এর রিপোর্টে বলা হয়, গত জুন মাসের কোন এক দিন আকস্মিকভাবেই হন্তদন্ত অবস্থায় ওভাল অফিসে ঢুকলেন ট্রাম্প। সামনে ছিল কয়েকটি ফাইল। চোখ বুলালেন তাতে। এরপর ট্রাম্প তার উপদেষ্টাদের উদ্দেশ্যে বললেন, আমার নির্বাচনী প্রতিজ্ঞায় ছিল আমি অভিবাসনে কড়াকড়ি আরোপ করবো। ৫ মাস আগে মুসলিম প্রবেশ নিষিদ্ধ করার পর সেটাও ঠিকমত কার্যকর করা সম্ভব হয়নি। এখন যে রিপোর্ট এসেছে তাতে দেখা যাচ্ছে ২০১৭ সালে ৬ মাসের মধ্যেই আফগান থেকে ২৫০০ এবং হেইতি থেকে ১৫০০ ভিসা ইস্যু করা হয়েছে।
একই সময় তিনি বলেন, আফগানিস্তান হচ্ছে সন্ত্রাসীদের স্বর্গ আর হেইতির সবগুলাই এইডস-এ আক্রান্ত। একই সময়ে ট্রাম্প বলেন, নাইজেরিয়া থেকে এসেছে ৪০ হাজার। এরা কখনো ফিরে যাবে না তাদের আস্তানায়।
প্রেসিডেন্টের এমন বিদ্বেষ ও ঘৃণাপ্রসূত মন্তব্যে উপস্থিত অনেকেই ছিলেন বিব্রত বোধ করেন। কিন্তু কিছুই করার নেই। ‘বিগ বস’ যা বলেন তাই সই।
টাইমস-এর রিপোর্ট বলেছে- সে সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন ৬ জন উপদেষ্টা। তবে তাদের নাম প্রকাশ করেনি নিউইয়র্ক টাইমস। এ সময় পররাষ্ট্রমন্ত্রী টিলারসন উপস্থিত ছিলেন সেখানে। তিনি বলেন, যাদের ভিসা দেয়া হয়েছে তাদের অধিকাংশই ব্যবসায়িক বা সাময়িক সময়ের জন্য আসছেন। এনিয়ে উপদেষ্টাদের মধ্যে বিশেষ করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী টিলারসনের বিরুদ্ধে অন্যদের একাট্রা হওয়ার বিষয়টি ছিল দৃশ্যমান। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক উপস্থিত একজন বলেন, উত্তেজনাকর পরিবেশের সৃষ্টি হয়েছিল উপদেষ্টাদের মধ্যে তখন।
হোয়াইট হাউস থেকে এই বৈঠকের বিষয়ে সরাসরি কোন কথা বলা হয়নি। তবে চীফ অব স্টাফ জন কেলী বলেছেন, ‘এইডস বা হাটস’ এধরনের শব্দ কখনো ব্যাবহার করেননি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প।
এদিকে এই সপ্তাহের নিউইয়র্ক টাইমস-এর আরেক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে: ট্রাম্প প্রশাসন তার অভিবাসন এজেন্ডা বেশ জোরালো করেই চলছেন। আনডকুমেন্টেড অভিবাসীদের আটক করে, মুসলিম ভ্রমন নিষেধাজ্ঞা জারী এবং ফলাওভাবে মেক্সিকো সীমান্তে সীমান্ত দেয়ালের কথা বলে তিনি বিষয়টিকে বাস্তবায়ন করছেন। কিন্তু লক্ষণীয় বিষয় এই যে, খুবই ঠান্ডা মাথায় কৌশলের সাথে তিনি নানা ধরনের বৈধ অভিবাসনের প্রক্রিয়াকেও গতিরোধ করে দিচ্ছেন। আর তার জন্য কংগ্রেসে কোন ধরণের সন্নিবেশিত আইন বাতিল করারও প্রয়োজন হয়নি। আইন বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ইমিগ্রেশন ও ষ্টেট ডিপার্টমেন্টের কর্মকর্তারা বেশ সুক্ষ বিশ্লেষন করে ঘন ঘন নানা ধরনের ভিসা আবেদন বাতিল করে দিচ্ছে। এসব ভিসার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে বিজনেস ভিসা এবং ঐসব স্কীল্ড ওয়ার্কার ভিসা যা আমেরিকান কোম্পানীগুলো নিয়োগ দিয়েছে বা দিচ্ছে। আর যেসব বিদেশীরা স্কীল্ড ওয়ার্কার হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রে আছেন, তাদের ভিসার মেয়াদ বাড়াতে তাদের নিয়োগ দাতাদের অনেক বাধা বিপত্তির সম্মুখীন হতে হচ্ছে। এভাবেই ট্রাম্প প্রশাসন যুক্তরাষ্ট্রে বৈধভাবে প্রবেশকারী অভিবাসীদের সংখ্যা হ্রাস করছেন। মূলত: স্কীল্ড ওয়ার্কার, টেম্পোরারী ওয়ার্কার, বিজনেস ভিসা হোল্ডার ও পার্মানেন্ট রেসিডেন্টারা ট্রাম্প প্রশাসনের এই কৌশলের মূল শিকার।
ইমিগ্রেশন সংক্রান্ত এসব পরিবর্তনগুলোয় বুঝা যায় যে, ট্রাম্প প্রশাসন কিভাবে স্বল্প মনোযোগে সার্বাধিক দূরবর্তী লক্ষ্যে পৌঁছানোর কৌশল পরিকল্পনা করে চলছে। এইসব কৌশলগত প্রক্রিয়ার মাধ্যমেই প্রশাসন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের নীতি অনুশীলন করে চলেছে যা তিনি তার নির্বাহী আদেশের বিলে সন্নিবেশিত করেছেন। যার একটি হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রকে সন্ত্রাসমুক্ত রাখা এবং অন্যটি হচ্ছে জাতীয় শ্রমজীবীদের বিদেশী প্রতিযোগিতা থেকে রক্ষা করা।
আমেরিকান কোম্পনীগুলো প্রতি বছর ৮৫ হাজার এইচ ওয়ান বি (স্কীল্ড ওয়ার্কার) ভিসা পেয়ে থাকেন যা তিন থেকে ছয় বছর মেয়াদী। যা কংগ্রেস নির্ধারণ করে থাকে। যখন আমেরিকাতে সমৃদ্ধ অর্থনীতি বিরাজমান তখন এই স্কীল্ড ওয়ার্কাদের চাহিদা এর সরবরাহকে ছাড়িয়ে যায় এবং সরকার তখন লটারীর জন্য প্রস্তুতি নেয়। কিন্তু এখনকার বাস্তবতায় যেসকল আবেদনকারী এই ভিসায় মনোনীত হচ্ছেন তারাও কঠিন বিবেচনার আওতায় পড়ছেন। উদ্ভুত পরিস্থিতিতে ইমিগ্রেশন কর্মকর্তারা ‘রিকোয়েস্ট ফর এভিডেন্স’-এর আওতায় আরো অতিরিক্ত ডকুমেন্ট চাচ্ছেন যা আগের স্বাভাবিক ডকুমেন্টের চেয়ে অধিক। এসব বিষয়গুলো ভিসার পাওয়ায় বিলম্বিত করছে।
ইউএস সিটিজেনশীপ ও ইমিগ্রেশন সার্ভিসেস-এর তথ্য অনুযায়ী চলতি বছর জানুয়ারী থেকে আগষ্ট পর্যন্ত ‘রিকোয়েস্ট ফর এভিডেন্স’-এর সংখ্যা শতকরা ৪৪ ভাগ বেড়ে গেছে শুধুমাত্র এইচ-১ বি ভিসার ক্ষেত্রে। এই বছর অক্টোবর ও নভেম্বরে যথাক্রমে শতকরা ৮৬ ভাগ ও ৮২ ভাগ এইচ-১ বি ভিসা অনুমোদন করা হয়েছে যা গত বছরের একই সময়ে ছিলো যথাক্রমে ৮৩ ও ৯২ ভাগ। বিষয়টি হলো যখন একটি কোম্পানী হাজার হাজার ডলার খরচ করে তার এমপ্লয়ীর জন্য খরচ করে এবং তার পর একটি ‘রিকোয়েস্ট ফর এভিডেন্স’ ইস্যু হয় তখন কোম্পানীগুলো নিরুৎসাহীত হয়ে পড়ে।
অভিবাসন বিরোধী ট্রাম্প প্রশাসনের এই ‘অদৃশ্য দেয়াল’ এইচ-২ ভিসাকেও (টেম্পোরারী ওয়ার্ক পারমিট) প্রভাবিত করবে। ট্রাম্প প্রশাসনের যুক্তি হচ্ছে এই সব টেম্পোরারী ওয়ার্কাররা পার্মানেন্ট শ্রমিকদের জায়গা দখল করে নেয় যা কিনা আমেরিকানদের প্রাপ্য।
অন্যদিকে এমপ্লয়ার দ্বারা যারা গ্রীনকার্ড পাচ্ছেন তাদের সবাইকে সরাসরি ব্যক্তিভাবে ইন্টারভিউয়ের মুখোমুখি হতে হচ্ছে যা কিনা আমেরিকার বিগত ২০ বছরের ইমিগ্রেশন নীতি বিরোধী। ইমিগ্রেশন এজন্সীর এক সার্কুলারে উল্লেখ করা হয় যে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড থেকে দেশকে রক্ষা করতেই এমন পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে।
নিউইয়র্ক টাইমস-এর খবরে আরো বলা হচ্ছে চলতি মাসেই ট্রাম্প প্রশাসন সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে, ওবামা প্রশাসনের ইমিগ্রেশন বিষয়ক কিছু কর্মসূচী বাতিল করবে। তার একটি হচ্ছে বিদেশী ব্যবসায়ীদের আমেরিকাতে ৫ বছর থাকার অনুমতি বাতিল করা। আরেকটি হলো এইচ-১ বি ওয়ার্কারদের স্পাউসদের ওয়ার্ক পারমিট বাতিল করা। পাশাপশি গ্র্যাজুয়েশনের পরে বিদেশী স্টুডেন্টদের টেম্পোরারী কাজ করার অনুমতি সীমিত করা। এছাড়াও ২০০১ সালের ৯/১১-এর পরে যেসকল গ্রীণকার্ডধারী মেলিটারীতে যোগ দিয়ে ১০ সপ্তাহের মধ্যে নাগরিকত্ব পেয়েছেন- এই প্রক্রিয়াটিও ট্রাম্প প্রশাসন পরিবর্তন করতে যাচ্ছে।
প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের অভিবাসন বিষয়ক কৌশলগত প্রক্রিয়া অভিবাসীদের মাঝে আমেরিকান ড্রীম বাস্তবায়নে ‘অদৃশ্য দেয়াল’ তৈরী করছে বলে অভিজ্ঞমহল অভিমত ব্যক্ত করেছেন।

এ রকম আরো খবর

স্পেশালাইজড হাইস্কুল ভর্তি পরীক্ষা পদ্ধতি উঠিয়ে দেয়ার পরিকল্পনা

বাংলা পত্রিকা রিপোর্ট: স্পেশালাইজড হাইস্কুল ভর্তি পরীক্ষা পদ্ধতি উঠিয়ে দেয়ারবিস্তারিত

নিউইয়র্কে বাংলাদেশ কনস্যুলেটে প্রথম নারী কনসাল জেনারেল

নিউইয়র্ক: নিউইয়র্কের বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেলে ১৫তম এবং প্রথম নারী কনসালবিস্তারিত

রাজ্য সিনেট: জর্জিয়ায় প্রাইমারী নির্বাচনে বাংলাদেশী শেখ রহমান জয়ী

রুমী কবীর: যুক্তরাষ্ট্রের জর্জিয়া অঙ্গরাজ্যের ডিস্ট্রিক্ট-৫ নির্বাচনী এলাকা থেকে রাজ্যেরবিস্তারিত

  • ফ্লোরিডা থেকে উৎক্ষেপন হলো বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ : অবশেষে বাংলাদেশের মহাকাশ জয়
  • ব্রুকলীনে ইমিগ্র্যান্ট গ্রুপের অভূতপূর্ব গণ আদালত : আইস-কে দোষী সাব্যস্ত
  • নিউইয়র্ক সিটি পুলিশের বিরুদ্ধে কোর্টে রায়: মিলিয়ন ডলারের ক্ষতিপূরণ : মুসলিম গোয়েন্দাবৃত্তি অবৈধ ঘোষণা
  • গণতন্ত্র ও ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠায় আরেকটি মুক্তিযুদ্ধের জন্য প্রস্তুতি নিতে হবে : তারেক রহমান
  • আবার শীতকালীন তুঝারঝড়ের কবলে যুক্তরাষ্ট্র ॥ নিউইয়র্কে ৬-১০ ইঞ্চি পরিমান তুষারপাতের সম্ভাবনা ॥ বুধবার পাবলিক স্কুল বন্ধ ঘোষণা
  • শীতকালীন-ঝড়ের কবলে যুক্তরাষ্ট্রের উত্তর ও পূর্ব-উপক‚লীয় অঞ্চল \ দুর্ঘটনার কবলে লং-আইল্যান্ড-আপস্টেট, নিউজার্সী-কানেকটিকাটে বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হাজারো মানুষ \ কয়েকটি রাজ্যে জরুরী অবস্থা জারী, ঝুঁকির মুখে লাখো মানুষ, ৩ হাজারের বেশী ফ্লাইট বাতিল
  • গণ গ্রেপ্তার বন্ধ করার আহ্বান হিউম্যান রাইটস ওয়াচের
  • লস অ্যাঞ্জেলেসে শেকলে বাঁধা সন্তান, উদ্ধার ১৩, গ্রেপ্তার পিতা-মাতা
  • ‘বোম্ব সাইক্লোন’র কার্যত অচল আমেরিকা : ১৭ জনের প্রাণহানী : যুক্তরাষ্ট্রে ৩ হাজার ৩শ’রও বেশি ফ্লাইট বাতিল : তুষার ঝড়ের কবলে গৃহবন্দি লাখ লাখ মানুষ
  • যুক্তরাষ্ট্রে প্রচন্ড তুষার ঝড়ে ১২ জনের মৃত্যু ॥ ‘বোমা সাইক্লোন’ আঘাত হানার আশঙ্কা ॥ নিউইয়র্কে সতর্কতা জারী
  • ট্রাম্পের প্রতি ইঙ্গিত করে শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে বিল ডি ব্লাজিও : ধর্ম-বর্ণের বিদ্বেস ছড়ানো আমেরিকার চেতনা বিরোধী
  • error: Content is protected !! Please don\'t try to copy.