র্সবশেষ শিরোনাম

রবিবার, আগস্ট ২০, ২০১৭

বাংলা পত্রিকা

Main Menu

সপ্তাহের শুরুতে সম্পূর্ণ নতুন সংবাদ নিয়ে

নিউইয়র্কের ব্রঙ্কসে বাংলাদেশী ইমাম হামলার শিকার

নিউইয়র্ক: ব্রঙ্কসের এক গ্রুপ উশৃঙ্খল যুবকের ‘ক্রোধের শিকার’ হলেন বাংলাদেশী এক ইমাম। ক্যাসেলহীলের ইউনিয়ন পোর্ট রোডের উপরে বাংলাদেশী মালিকানার একটি মোবাইল দোকানের সামনেই ঘটনাটি ঘটে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে দু’জনকে আটক করে নিয়ে যায় পুলিশ। বৃহস্পতিবার (১৭ জুন) ইফতার পরবর্তী সময়ে হিস্পানিক বংশোদ্ভূত একাধিক যুবক মোবাইল দোকান থেকে ইমাম কামাল উদ্দিনকে জোরপূর্বক টেনে হিঁচড়ে বাইরে নিয়ে যায়। এসময়ে তাদের উপর্যপূরি আঘাতে গুরুতর আহত হন তিনি। আহত অবস্থায় বাংলাদেশী অভিবাসী ওই ইমামকে জ্যাকবি হাসপাতালে পাঠানো হয়।  ব্রঙ্কসের বাংলাবাজারের কর্নার ঘেঁষে ইউনিয়ন পোর্ট রোডের ওপরে গড়ে উঠেছে দেশীয় মালিকানার একটি মোবাইল ফোন ও উপহার সমাগ্রীর দোকান। ‘ফোন্স ক্ল্যাব নাম’ক এই দোকান থেকে টেনে হিঁচড়ে বের করে নেয়া হয় বাংলাদেশী এক ইমামকে। এরপর তাকে বেধড়ক মারধোর করা হয়।
বৃহস্পতিবার ইফতার পরবর্তী ওই ঘটনার কারণ জানতে ফোন্স ক্লাবের সিসিটিভিতে ধারণকৃত ফুটেজ সংগ্রহ করে টাইম টেলিভিশন। যাতে দেখা যায় সাদা টি শার্ট পরিহিত দু’জন যুবক বাংলাদেশী ইমাম কামাল উদ্দিনকে জোরপূর্বক দোকানের বাইরে নিয়ে যায়। তাদের সাথে ছিল আরো কয়েকজন সহযোগি।
হামলাকারিদের হাত থেকে ছুটে ফের মোবাইল দোকানে প্রবেশ করেন কামাল উদ্দিন। সেখানেও তার উপর চড়াও হন উচ্ছৃঙ্খল ওই যুবকেরা। খবর পেয়ে পুলিশ এসে দু’জনকে আটক করতে সক্ষম হয়। আর জ্যাকবি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় ঘটনার শিকার বাংলাদেশীকে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা টাইম টেলিভিশনকে জানান, মোবাইল ফোন সংক্রান্ত বাকবিতন্ডার মধ্যেই সেখানে উপস্থিত দাঁড়ি-টুপি পরা ইমামের ওপর হামলা চালানো হয়। এ বিষয়ে কমিউনিটিতে রয়েছে মিশ্র-প্রতিক্রিয়া। যদিও, শুক্রবার হাসপাতাল থেকে ছাড়া পান কামাল উদ্দিন। বাংলা বাজার মসজিদে জুমার নামাজ আদায় শেষে অতর্কিত হমলার কথা জানা তুলে ধরেন তিনি। মোবাইল ফোন সংক্রান্ত জক্কি-ঝামেলার মধ্যেই সেখানে উপস্থিত বাংলাদেশী কামাল উদ্দিনের ওপর হামলার ঘটনাটি মুসলিম বিদ্বেষ তথা ঘৃণার বহিঃপ্রকাশের কারণেই ঘটেছে। এমনটি মনে করছেন মসজিদে আগত মুসল্লিরা।
এর আগেও একাধিক হামলার শিকার হন বাংলাদেশীরা। কেউ কেউ এসব ঘটনাকে হেইট ক্রাইম বলে দাবি করেন। ব্রঙ্কসের বাংলাদেশী অধ্যুষিত পার্কচেস্টার ক্যাসেল হীলের স্টারলিং এভিনিউতে বাংলাদেশীদের শক্ত অবস্থান থাকার পরও একের পর এক এসব হামলা ভাবিয়ে তুলেছে পুরো কমিউনিটিকে। (টাইম টেলিভিশন)

এ রকম আরো খবর

‘জাতীয় শোক দিবস’ স্মরণে বাংলাদেশ সোসাইটি’র দোয়া ও আলোচনা সভা

নিউইয়র্ক : ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্ট ‘জাতীয় শোক দিবস’ স্মরণেবিস্তারিত

নিউইয়র্কে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মৃত্যুবার্ষিকী ‘জাতীয় শোক দিবস’ পালিত

বাংলা পত্রিকা রিপোর্ট: ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্টের শোককে শাক্তিতে পরিণতবিস্তারিত

বিয়ানীবাজার সমিতির সঙ্কট নিরসনে তিন দফা দাবী

নিউইয়র্ক: যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী সিলেটের বিয়ানীবাজার উপজেলাবাসীদের অন্যতম সামাজিক সংগঠন ‘বাংলাদেশবিস্তারিত

  • অভিযোগ-হেইট ক্রাইম : এস্টোরিয়ায় বাংলাদেশী হামলার শিকার
  • বাংলাদেশী পুলিশ অফিসার হেমায়েতের নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত
  • টাইম টিভি-এটর্নী বুশ ফিসার সামার ফেস্টিভ্যাল : এসেছিলেন কুইন্স বরো প্রেসিডেন্ট-আবাল বৃদ্ধ বনিতা
  • সুমি ঘটনার জের শেষ না হতেই : নিউইয়র্কে বাংলাদেশী পুলিশ অফিসারের আত্মহত্যা
  • নিউইয়র্ক বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের সভায় আন্তর্জাতিক ফোরাম গঠনের আহ্বান
  • বাংলাদেশ সোসাইটি আরো ৩০০ কবর কিনবে
  • চট্টগ্রাম সমিতি’র সাংস্কৃতিক সম্পাদক লিটনের স্ত্রী বিয়োগ
  • বিয়ানীবাজার সমিতির ভোটার ১২৫৫
  • টাইম টিভি-এটর্নী বুশ ফিসার সামার ফেস্টিভ্যাল ১৩ আগষ্ট
  • অসুস্থ্ স্বামী, অপবাদ-অসহায়ত্বের জ্বালা: নিউইয়র্কে বাংলাদেশী সুমির আত্মহত্যা
  • হোয়াইট হাউজের সামনে মেট্রো ওয়াশিংটন আ. লীগের সমাবেশ
  • সিনিয়র সাংবাদিক মাহবুবুর রহমানের মাতৃবিয়োগ