র্সবশেষ শিরোনাম

শনিবার, নভেম্বর ১৮, ২০১৭

বাংলা পত্রিকা

Main Menu

সপ্তাহের শুরুতে সম্পূর্ণ নতুন সংবাদ নিয়ে

মুক্তিযুদ্ধে বঙ্গবন্ধুর একক নেতৃত্ব প্রশ্নাতীত

বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বীরউত্তম: শোকের মাস আগস্ট নিয়ে কোনো কথা নেই। কিন্তু পয়লা আগস্ট থেকে কান্নাকাটি আমাকে বড় বেশি বিরক্ত করে। কারণ ১৫ তারিখ পর্যন্ত সবার মতো তিনি আমাদের মাঝে দৃশ্যমান ছিলেন। আগস্ট আমার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ মাস। যাকে বিয়ে করেছি, যে এখন ছায়ায়-মায়ায়-কায়ায় মিশে আছেন সেই নাসরীন কোরায়েশীর জন্ম ১৪ আগস্ট। ১৪ আগস্ট পাকিস্তানেরও জন্মদিন। সেটা এখন আমাদের আর স্পর্শ না করলেও ১৫ আগস্ট ভারতের স্বাধীনতা দিবস আমাদের কমবেশি স্পর্শ করে। ১৯৭১ থেকে ’৭৪ ভারতের স্বাধীনতা দিবসে আমরা খুবই খুশি হতাম। কিন্তু ’৭৫-এ বঙ্গবন্ধুর নির্মম হত্যার পর সব কেমন যেন এলোমেলো হয়ে গেছে। মুয়াজ্জিনের আজানের ধ্বনি কানে আসার পরপরই আমাদের হূদয় ভেঙে খানখান হয়ে যায়। হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালী, আমার রাজনৈতিক পিতা এ জগৎ ছেড়ে না-ফেরার দেশে চলে যান। সেই থেকে আর ভালোভাবে শ্বাস নিতে পারি না, কোথায় যেন আটকে যায়, শূন্যের শূন্যতা রাজে বুক নাহি ভরে, কিছুই ভালো লাগে না। ১৬ আগস্ট ’৭১ পাকিস্তান হানাদারদের সঙ্গে প্রত্যক্ষ যুদ্ধে ধলাপাড়ার মাকরাইয়ে গুলিবিদ্ধ হয়েছিলাম। বাঁচার আশাই ছিল না। ঘাতক পাকিস্তানিরা প্রচার করেছিল, চিরশত্রু কাদের সিদ্দিকী খতম হয়েছে। যে কারণে মিষ্টি খাওয়ার ধুম পড়েছিল। যদিও দু-চার দিন পর তারা তাদের খবরের ওপর ভরসা করতে পারেনি। আশা ছেড়ে দিয়ে বলেছিল, কাদের সিদ্দিকী মারা না গেলেও তার হাত-পা খোয়া গেছে। যুদ্ধ করার কোনো ক্ষমতা এখন আর তার নেই। শত্রু হত্যা করে নাচানাচি, মিষ্টি খাওয়ার প্রচলন হাজার বছরের, এমনকি তারও বেশি। কারবালায় ইমাম হোসাইনকে হত্যা করে দামেস্কে মুয়াবিয়াপুত্র এজিদরা মিষ্টি খেয়েছিল। এই সেদিনের কথা, ভারত স্বাধীন হওয়ার পর ’৪৮ সালের ৩০ জানুয়ারী নাথুরাম গডসের হাতে মহাত্মা গান্ধী নিহত হলে গুজরাটসহ ভারতের অনেক শহরে মিষ্টি খাওয়া-খাওয়ি হয়েছিল। বঙ্গবন্ধু হত্যার পরও অনেক অতি উৎসাহী মিষ্টি খেয়েছে। আমরা ছিলাম সেদিন চরম অসহায়, প্রধান শত্রু। মুক্তিযুদ্ধে যেমন আমার মাথার দাম ছিল লাখ টাকা, ঠিক তেমনি বঙ্গবন্ধু হত্যার পরও আমাদের যেখানে পেত সেখানেই হত্যা করত। আজ যারা সুবিধায় তাদের মতো কখনো সুবিধায়, নিরাপদে ছিলাম না। বঙ্গবন্ধুর কন্যা, মায়ের মতো বোন সর্বক্ষমতা নিয়ে সরকার প্রধান হওয়ার পরও কেন জানি নিরাপদ বোধ করি না। স্ত্রী, ছেলেমেয়ে ঢাকায় রেখে যখন বাইরে যাই তখন কেন যেন ভয় হয়। স্বৈরাচার হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ দলের প্রধান হিসেবে সরকারি নিরাপত্তা পান। নিবন্ধিত দলের প্রধান এবং একমাত্র বেসরকারি বাঙালী বীরউত্তম হিসেবে আমি কোনো নিরাপত্তা পাই না। দু-একবার একে ওকে বলেছি, কেউ তেমন গা করেনি। মনে হয় আওয়ামী লীগারদের জীবনের মূল্য আছে, বঙ্গবন্ধুর ভক্তদের জীবনের কোনো মূল্য নেই।
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ১৬ আগস্ট এক শোক সমাবেশে দুঃখ করে বলেছেন, ‘যারা প্রশ্ন তোলে বঙ্গবন্ধু একা, একক নেতৃত্বে দেশ স্বাধীন করেননি।’ এ নিয়ে তিনি ইয়াহিয়ার ভাষণ শুনতে বলেছেন। খন্দকার মোশতাক ও জিয়াউর রহমানকে বঙ্গবন্ধুর খুনে দায়ী করেছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এখন অনেক ম্যাচিউর, আন্তর্জাতিক মানের নেতা। দক্ষতা-যোগ্যতা না থাকলে নেতৃত্ব করা যায় না। কারও পছন্দ হোক বা না হোক তা আছে বলেই করছেন। তবু বলব ওসব নিয়ে কেন তিনি অত উদগ্রীব হবেন? একা দেশ স্বাধীন করেননি, অনেকের অবদান বা ভূমিকা আছে এ কথার জবাব তাকে দিতে হবে কেন? এত বড় দল এসবের যুক্তিযুক্ত জবাব দেওয়ার লোক কি আওয়ামী লীগে নেই? আমি যখন বলি, ‘ছাগল দিয়ে ধান মাড়ানো যায় না’ তখন হয়তো অনেকের খারাপ লাগে। কিন্তু কথাটা যে মিথ্যা নয়, একেবারে নির্মম শাশ্বত সত্য তা ইতিহাসে প্রমাণিত।
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, ‘জাতির পিতা’ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের একক নেতৃত্ব নিয়ে যখন বলেন ইয়াহিয়ার ভাষণ শুনতে তখন কষ্ট হয়। বঙ্গবন্ধুকে ভালো-খারাপ প্রমাণ করতে ইয়াহিয়ার সাহায্য নিতে যাব কেন? বাংলাদেশের স্বাধীনতার প্রশ্নে শুধু বঙ্গবন্ধু, বঙ্গবন্ধু আর বঙ্গবন্ধুকেই দেখতে পাই। তার বাইরে আর কাউকে দেখতে পাই না। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, পাকিস্তান সেনাবাহিনী ঘোষণা করেছিল, কাদের সিদ্দিকীকে মৃত অথবা জীবিত ধরে দিতে পারলে এক লাখ টাকা পুরস্কার দেওয়া হবে। ‘অ্যাঙ্গ উদে ব্যাঙ উদে, খইলস্যা কয় আমিও উদি’ এখন বাঙ্গিবনে বহু শেয়াল রাজা দেখা যাবে। কিন্তু পাকিস্তানের দলিল-দস্তাবেজে কাদের সিদ্দিকী ছাড়া আর কাউকে পাওয়া যাবে না। ঠিক তেমনি মুক্তিযুদ্ধে বঙ্গবন্ধুর একক নেতৃত্বে, না যৌথ নেতৃত্বে বা বহু মানুষের কৃতিত্বে দেশ স্বাধীন হয়েছে, এটা নিয়ে বঙ্গবন্ধুকন্যার শঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই, কোনো ব্যাখ্যা-বিশ্লেষণের দরকার নেই। ইতিহাসের পাতায় বঙ্গবন্ধু তার নাম এক নম্বরে নিয়ে গেছেন। যে যাই বলুন, সেখান থেকে সরানো বা মুছে ফেলার সাধ্য কারও নেই।
গোড়া থেকে দুই কথা বলি। বঙ্গবন্ধুর প্রথম নেতা শেরেবাংলা এবং হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী। কলকাতায় গিয়ে নেতা পিতা বঙ্গবন্ধু শেরেবাংলা এ কে ফজলুল হকের চেয়ে হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর বেশি ঘনিষ্ঠ ছিলেন। তার প্রেরণাই তাকে রাজনীতিতে বেশি করে সক্রিয় করে। শিষ্যের জন্য গুরুর যতটুকু করা দরকার তা তিনি করেছেন। পাকিস্তান সৃষ্টির পর বঙ্গবন্ধু ঢাকায় এলে বর্ধমানের আবুল হাশিমও চলে আসেন। তিনি ছিলেন বঙ্গবন্ধুর মন্ত্রগুরু। তিনি তেমন একটা দেখতে পেতেন না। ঢাকায় এসে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কৃত হয়ে সংগ্রামী শেখ মুজিব বঙ্গবন্ধু হওয়ার আগ পর্যন্ত মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানীকে পান। হুজুর মওলানা ভাসানীকে নিয়ে আমার এক লেখায় বড় ভাই লতিফ সিদ্দিকী ভুল ধরেছিলেন। তিনি যথার্থই বলেছিলেন, ‘তোমার তথ্যে ভুল আছে। বঙ্গবন্ধুকে শুধু হুজুর মওলানা ভাসানীই নেতা বানাননি।’ আমিও তা জানতাম। এখনো জানি-মানি-বিশ্বাস করি বঙ্গবন্ধুকে সন্তানের মতো ভালোবাসতেন হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী। পাকিস্তান হওয়ার পর ১৯৫১ সাল পর্যন্ত হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী পূর্ব পাকিস্তান তো নয়ই, পশ্চিম পাকিস্তানেও যাননি। ’৫১ সালের পর তিনি পশ্চিম পাকিস্তানে যান। ’৪৯-এ যখন আওয়ামী মুসলিম লীগ গঠিত হয় হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী তখন কলকাতা থেকে নারায়ণগঞ্জে এসেছিলেন। কিন্তু তাকে স্টিমার থেকে নামতে দেওয়া হয়নি। ভারতের লেলিয়ে দেওয়া কুকুর বলে ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছিল। আসামে বাঘের সঙ্গে হাতির সঙ্গে লড়াই করে টিকে থাকা হুজুর মওলানা ভাসানীর এ সময় বঙ্গবন্ধু ছিলেন ছায়া। হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী পশ্চিম পাকিস্তান থেকে যতবার পূর্ব পাকিস্তানে আসতেন, যত টাকা রোজগার করতেন সব পুত্রতুল্য বঙ্গবন্ধুকে দিয়ে যেতেন। ধানমন্ডির বাড়ির টাকাও তিনি দিয়েছিলেন। এসব জানি না তা নয়। ’৪৭-’৫৭ এ ক’বছর সব ক্ষেত্রে হুজুর মওলানা ভাসানী ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের আশ্রয় এবং প্রধান নেতা। অত পেছনে যেতে চাই না। আইয়ুবকে নাস্তানাবুদ করে আগরতলা মামলা প্রত্যাহারে হুজুর মওলানা ভাসানীর ভূমিকা ছিল অসাধারণ। যেহেতু পরে দুজনের খুব কাছাকাছি ছিলাম সেজন্য বলতে পারি। ১৯৫৭-’৬৫ কিছুটা দূরত্ব থাকলেও ’৬৮-’৭৫ বঙ্গবন্ধু মারা যাওয়া পর্যন্ত কোনো কাজ গুরু মওলানা ভাসানীকে না জানিয়ে করেননি। ’৭০-এর নির্বাচনে ন্যাপের সব প্রার্থী প্রত্যাহার করা হয়। পরে বুঝেছি, ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি ভাসানীর তখন যে অবস্থা তারা প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলে ১০-২০টা আসন অবশ্যই পেত। এতে ভোট ভাগ হতো, বঙ্গবন্ধুর হাত দুর্বল হতো। ’৭০-এর নির্বাচনে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ সব কটি আসন পেলেও সব ভোট পায়নি। ওই অবস্থায়ও ২৫-৩০ শতাংশ ভোট পাকিস্তান সমর্থক দলগুলো পেয়েছিল। বাংলাদেশের স্বাধীনতা আল্লাহর দরবারে কবুল হয়ে গিয়েছিল। তাই পেয়েছি। না হলে কত ভুল হয়েছে যাতে আমাদের পদে পদে ব্যর্থ হওয়ার কথা। কিন্তু বঙ্গবন্ধুর দক্ষ পরিচালনায় আমাদের অনেক ব্যর্থতাই সফলতায় রূপ নিয়েছে। ’৭১-এর ৭ মার্চে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের তার ভাষণ নিয়ে কতজন কত কথা বলে, এখানে ভুল ওখানে ভুল। কিন্তু অন্ধ আমি কোনো ভুল দেখি না।
তার মতো অমন জনপ্রিয় নেতা সেই সময় বিশ্বে খুব বেশি ছিল না। আর কোনো গণতান্ত্রিক নেতা ছিলেন না, যিনি একটি সশস্ত্র যুদ্ধের মাধ্যমে তার দেশ স্বাধীন করেছেন। সেটা মাও সে তুং, হো চি মিন, ফিদেল কাস্ত্রো। যার কথাই বলি বেসামরিক কোনো নেতা সামরিক যুদ্ধের মধ্য দিয়ে তার দেশ মুক্ত করেননি, করতে পারেননি। সে ক্ষেত্রে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব অনন্য, অসাধারণ। যদি প্রশ্ন আসে বঙ্গবন্ধু একাই দেশ স্বাধীন করেছেন, না আরও কারও ভূমিকা আছে বা ছিল? সে ক্ষেত্রে বলব, তিনি মোটেই একা দেশ স্বাধীন করেননি। সাড়ে সাত কোটির মধ্যে ছয়-সাড়ে ছয় কোটির সবার ভূমিকা আছে বা ছিল। সেখানে আমার আছে, আছে জিয়াউর রহমানের, ছাত্রনেতা নূরে আলম সিদ্দিকী, শাজাহান সিরাজ, আ স ম আবদুর রব, আবদুল কুদ্দুস মাখন, যুবনেতা শেখ ফজলুল হক মণি, আবদুর রাজ্জাক, সিরাজুল আলম খান, তোফায়েল আহমেদ কার নেই, সবারই আছে। বঙ্গবন্ধুর অবর্তমানে বিস্ময়কর নেতৃত্ব দিয়েছেন সৈয়দ নজরুল ইসলাম, বঙ্গতাজ তাজউদ্দীন আহমদ, মনসুর আলী, কামারুজ্জামান তারা সবাই নেতা। সবার ভূমিকা সমুদ্রের মতো বিশাল, হিমালয়ের কাঞ্চনজঙ্ঘা স্পর্শ করার মতো। কিন্তু কেউ বঙ্গবন্ধুকে বাদ দিয়ে নয়। আমাদের দু-চার জনকে বাদ দিলে বঙ্গবন্ধুর কোনো ক্ষতি হতো না। তার ক্ষমতা ও খ্যাতিতে কোনো দাগ পড়ত না। কিন্তু তাকে বাদ দিয়ে আমরা মূল্যহীন। শূন্য শূন্য শূন্য। মুক্তিযুদ্ধে যে বিশাল শক্তি ও সামর্থ্য অর্জন করেছি বঙ্গবন্ধুকে অস্বীকার করে তার কিছুই করতে পারতাম না। মুক্তিযুদ্ধের আগে থেকেই হুজুর মওলানা ভাসানীর ছায়ায়-মায়ায় জড়িয়ে ছিলাম। তার দলে কত বড় বড় নেতা, বিপ্লবী ছিল তারা কেউ হালে পানি পায়নি। আমিও বঙ্গবন্ধুর নামে রাস্তায় না নামলে পানি পেতাম না। প্রথম প্রথম প্রতিকূলতা ছিল, মানুষ ভয় পেয়ে গিয়েছিল। কিন্তু প্রতিরোধযুদ্ধ সবই হয়েছে বঙ্গবন্ধুর নামে। সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহমদ, ক্যাপ্টেন মনসুর আলী, কামারুজ্জামান, জননেতা আবদুল মান্নান তারা যে দৃঢ়তার সঙ্গে মুক্তিযুদ্ধ ধরে রেখেছিলেন, ভারত যে আমাদের পাশে দাঁড়িয়েছিল সেও বঙ্গবন্ধুর জনপ্রিয়তার জন্য। আমাদের কারও মুখ দেখে নয়। একপাশে ছিন্নভিন্ন কোটি জনতা, অন্যপাশে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মাঝে আর কিছু ছিল না। আমরা সবাই ছিলাম অপূর্ণ। একমাত্র বঙ্গবন্ধু সশরীরে উপস্থিত না থাকলেও তিনি ছিলেন পূর্ণ। তাকে অবলম্বন করেই আমরা সবাই ছিলাম। তিনি জীবিত ছিলেন তাও ছিলেন আমাদের শক্তি, জীবিত না থাকলেও আমাদের শক্তি থাকতেন। বঙ্গবন্ধুর আকর্ষণ আর দেশপ্রেমই ছিল আমাদের সব শক্তির আধার। জনাব জিয়াউর রহমান চট্টগ্রাম বেতারে যে ঘোষণা দিয়েছিলেন, ‘ও, গধলড়ৎ তরধ, ফড় যবৎবনু ফবপষধৎব ঃযব রহফবঢ়বহফবহপব ড়ভ ইধহমষধফবংয ড়হ নবযধষভ ড়ভ ড়ঁৎ মৎবধঃ হধঃরড়হধষ ষবধফবৎ ইধহমধনধহফযঁ ঝযবরশয গঁলরনঁৎ জধযসধহ!’ সেখানে ভদ্রলোক বঙ্গবন্ধুকে উচ্চারণ না করে পারতেন? বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার আগে জিয়াউর রহমানের সঙ্গে বঙ্গবন্ধুর কোনো দিন দেখা হয়নি। বরং এ আগস্ট মাসেই আমার সঙ্গে একবার দেখা হয়েছিল। তখন বঙ্গবন্ধুর নাম ছাড়া গাছের পাতা নড়ত না, পড়ত না। কোনো পাতা গাছ থেকে ছিঁড়ে গেলে মাটি আর গাছের মাঝামাঝি ঝুলে থাকত বঙ্গবন্ধুর নির্দেশের জন্য। আজ যারা নতুন করে ইতিহাস লিখতে চান তাদের ব্যাপারগুলো ভেবে দেখা দরকার। যে নেতারা ভারতে গিয়েছিলেন তারা যাওয়ায় আমাদের শক্তি বেড়েছিল। কিন্তু বঙ্গবন্ধু যদি ভারতে যেতেন তাহলে ২০ বছর যুদ্ধ করেও আমরা স্বাধীন হতে পারতাম না। আমাদের ভারতের দালাল বলা হতো। হ্যাঁ, ইংল্যান্ডে গেলে, সেখান থেকে নেতৃত্ব দিলে কী হতো বলতে পারি না। কিন্তু ভারতে আশশ্রয় নিলে আমরা ওই সময় জয়ী নয়, পরাজিত হতাম। অনেকের অভিযোগ বঙ্গবন্ধু সরে না গিয়ে ভুল করেছেন। মহাপন্ডিতদের বলি, হানাদাররা তাকে ধানমন্ডির বাড়িতে না পেলে শুধু বঙ্গবন্ধুর খোঁজে আরও পাঁচ-সাত লাখ মানুষ হত্যা করত। বঙ্গবন্ধু একা দেশ স্বাধীন করেননি এটা সত্য। কিন্তু কেউ বঙ্গবন্ধু ছাড়া ছিলেন না। মুজিবনগর সরকার ছিল, জিয়ানগর সরকার ছিল না। ‘শোনো, একটি মুজিবরের থেকে লক্ষ মুজিবরের কণ্ঠস্বরের ধ্বনি, প্রতিধ্বনি আকাশে বাতাসে ওঠে রণি।’ রহমানে রহমানে মিল থাকলেও জিয়াউর রহমান আর মুজিবুর রহমান এক নয়। অন্য কারও নামে গান হতো না, মানুষ উজ্জীবিতও হতো না। বঙ্গবন্ধুর একক নেতৃত্বে দেশ স্বাধীন হয়নি এ কথা কে বলে? যে বলে সে হেমায়েতপুর মানসিক হাসপাতালের কেউ হতে পারে। আমাদের মুখে ছিল বঙ্গবন্ধু, বুকে ছিল বঙ্গবন্ধু, মুক্তিযোদ্ধার বুলেট যখন শত্রুর দিকে ছুটে যেত তাতে থাকত বঙ্গবন্ধু। কোথায় ছিলেন না তিনি? তিনি একা দেশ স্বাধীন করেছেন সেটা কে বলে? তিনি তো তখন একা ছিলেন না। ফালানীর ছেলে সুলতান সেও ছিল বঙ্গবন্ধু। সাড়ে সাত কোটি বাঙালীর মধ্যে তিনি একাকার হয়ে গিয়েছিলেন। বঙ্গবন্ধুর ছায়া ছাড়া জিয়াউর রহমান, শফিউল্লাহ, খালেদ মোশাররফ, শাফায়েত জামিলরা যুদ্ধ করতে পারতেন? ভারতের সঙ্গে একটা ব্যবস্থা না হলে শত্রুদেশ পাকিস্তান, সে দেশের সেনারা ভারতে প্রবেশের সঙ্গে সঙ্গে ১২ বছরের কোর্ট মার্শাল হতো। ব্যাপারটা মামার বাড়ি নয়। সবখানেই বঙ্গবন্ধু। নিঃসন্দেহে তার দুর্বার নেতৃত্বে-কর্তৃত্বে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে। সবকিছুর ঊর্ধ্বে ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব। তখন তিনি কোনো ব্যক্তি ছিলেন না, তিনি তখন এক জাতীয় সত্তায় পরিণত হয়েছিলেন। স্বাধীনতার পর কায়েমি স্বার্থবাদী বিদেশি চক্রের প্ররোচনায় তাকে অপ্রিয় করার চেষ্টা হয়েছে। কিন্তু মুক্তিযুদ্ধে তিনি সাড়ে সাত কোটি বাঙালীর বড় প্রিয় আপনজন, অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ ছিলেন। তার পিতার মতো নেতা মজলুম জননেতা মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানীও যুদ্ধে তার নেতৃত্ব-কর্তৃত্ব অবলীলায় মেনে নিয়েছিলেন। স্বাধীনতার এত বছর পর যারা বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্ব নিয়ে প্রশ্ন তোলেন তারা খুব বেশি স্বাভাবিক মানুষ নন। যারা তাকে কখনো মানেননি, তারা এখনো মানবেন না। তারা দেশের কেউ নন। তারা বড় বড় কথা বলতে পারেন, বড় বড় এজেন্সির সঙ্গে চলতে পারেন, জ্ঞান-বুদ্ধিতে পূর্ণ হতে পারেন। কিন্তু তারা বাংলাদেশ নন, বাংলাদেশের প্রাণ নন। তাই স্বাধীনতায় বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্ব-কর্তৃত্ব নিয়ে অকৃতজ্ঞরা প্রশ্ন তুলতে পারেন। দেশবাসী কখনো তোলে না, তুলবে না। তিনি বাংলাদেশের অবিসংবাদিত নেতা, তিনি বাংলাদেশের পিতা। অকৃতজ্ঞরা তাকে সম্মান না করলেও আল্লাহ তাকে সম্মান দিয়েছেন, বিশ্ব তাকে সম্মান দিয়েছে। ছোটখাটো অবদান আমাদের সবার আছে। কিন্তু সেটা তার অবদানেরই অংশ এটাই জ্বলজ্বলে উজ্জ্বল সত্য। লেখক : রাজনীতিক।

এ রকম আরো খবর

আ.লীগ নেতা খান মোশাররফের মৃত্যু ও কিছু স্মৃতি কথা!

চিরবিদায় নিয়ে দুনিয়া ছেড়ে চলে গেছেন দক্ষিণাঞ্চলের বর্ষীয়ান আওয়ামী লীগবিস্তারিত

ঠেঙ্গামারা যখন ইয়েল ইউনিভার্সিটিতে

(আবদুস সামাদ কিভাবে হয়ে গেলেন হোসনে আরা বেগম ? ভিক্ষুকেরবিস্তারিত

বঙ্গবন্ধু শিখিয়েছিলেন, রাজনীতি মানে ভালোবাসা

ড. কামাল হোসেন: বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চ ঘোষণাকে কেন্দ্র করে জল্পনা-কল্পনা যখনবিস্তারিত

  • কাছ থেকে দেখা সেই হত্যাকান্ড
  • error: Content is protected !! Please don\'t try to copy.